গ্লাভস ব্যবহারের সুরক্ষিত নিয়ম

করোনাভাইরাসের কারণে আমরা জীবনযাপনে পরিবর্তন আনতে বাধ্য হয়েছি। ঘর থেকে বের না হয়ে ডিজিটাল মাধ্যমে টেলিমেডিসিন সেবা নিতে হচ্ছে। আগে যেসব বিষয়ে ততটা গুরুত্ব দিতাম না, সেগুলোর প্রতি এখন অনেক বেশি গুরুত্ব দিচ্ছি। এই যেমন মাস্ক পরা বা হ্যান্ড গ্লাভস ব্যবহার করা। মহামারীর এই সময়ে নিজেকে সুরক্ষিত রাখতে নানা প্রচেষ্টা থাকা গুরুত্বপূর্ণ। করোনাভাইরাস যেহেতু হাতের মাধ্যমে শরীরের অন্যান্য অংশে দ্রুত ছড়াতে পারে, তাই সবার আগে হাত দুটি সুরক্ষিত রাখার চেষ্টা করেন সবাই। গ্লাভস ব্যবহারের সুরক্ষিত নিয়ম জানাটা তাই আমাদের জন্য জরুরী।

বিশেষজ্ঞদের মতামত

বিভিন্ন ধরনের সামগ্রী দিয়ে তৈরি হয় গ্লাভস। প্রস্তুতকারী ওই সব সামগ্রীর জেরেই হাতের তুলনায় গ্লাভসের উপরেই ভাইরাস বেশিদিন বাঁচে।

তাই বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বেশিক্ষণ ওই গ্লাভস পরে থাকাকালীন যে সামগ্রীতে আপনি হাত দিচ্ছেন, তাতেই ছড়িয়ে পড়ছে ভাইরাস। তাই সেক্ষেত্রে বলা চলে খালি হাত অনেকাংশে নিরাপদ।

বিশেষজ্ঞদের আরও দাবি, গ্লাভস অনেক সময়ে আমাদের পরিচ্ছন্নতা সম্পর্কে সচেতনতা বাড়ানোর পরিবর্তে অসচেতন করে তোলে বেশি। যেমন, অনেক সময়ই আমরা গ্লাভস খোলার পর সেই হাতেই বিভিন্ন জিনিসে হাত দিয়ে থাকি। তার ফলে অনেক সময় হাত থেকে জীবাণু প্রায় গোটা শরীরে ছড়িয়ে পড়ার ঝুঁকি বেড়ে যায় সিংহভাগ। তাই গ্লাভস খুলে অবশ্যই হাত ধোয়ার পরামর্শ দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা।

হাত সুরক্ষিত রাখতে গ্লাভস ব্যবহার করছেন অনেকেই। সঠিক নিয়ম না মেনেই যদি গ্লাভস ব্যবহার করেন, তবে বাড়তে পারে করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হওয়ার ঝুঁকি। গ্লাভস ব্যবহারের সুরক্ষিত নিয়ম মেনে চলার কথা প্রকাশ করেছে ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস-

নিয়ম

* গ্লাভস পরলে আপনার হাতে হয়ত জীবাণু লাগবে না, তবে লেগে থাকবে গ্লাভসের গায়ে।

* সিলিকন, পলিথিন বা রবার দিয়ে গ্লাভস তৈরি। এর উপরেই করোনাভাইরাস দীর্ঘক্ষণ বেঁচে থাকে।

* হাতে গ্লাভস পরে থাকাকালীন নাক, মুখ বা শরীরের কোনো স্থানে হাত দেবেন না।

* যদি কোথাও হাত দেয়ার প্রয়োজন পড়ে তবে টিস্যু ব্যবহার করুন। আর অবশ্যই স্যানিটাইজার ব্যবহার করবেন। এমনকি গ্লাভসের উপর দিয়ে হাত ধোয়াও যাবে।

* কাজ শেষে গ্লাভস খোলারও রয়েছে একটি নির্দিষ্ট পদ্ধতি। দুটি আঙুল দিয়ে হাতের কবজির সামনে থাকা গ্লাভসের অংশ টেনে সেটি খুলে ফেলুন।

* হাত থেকে গ্লাভস খোলার পরে তা নির্দিষ্ট জায়গায় ফেলে দিতে হবে।

* গ্লাভস খোলার পর অবশ্যই হাত সাবান-পানি দিয়ে ধুয়ে নেবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *